নরসিংদী প্রতিনিধি: নরসিংদীতে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে কিশোরীকে সেবিকার চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার কিশোরীর মা বাদী হয়ে শুক্রবার (৩১ মে) নরসিংদী সদর থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ অভিযুক্ত চিকিৎসক আশরাফ উদ্দিন জুলফিকারকে (৫০) গ্রেফতার করেছে।

নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সৈয়দুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অভিযুক্ত চিকিৎসক আশরাফ উদ্দিন জুলফিকার গাজীপুরের হোতাপাড়ার মনিপুরের সিরাজুল ইসলামের ছেলে ও নরসিংদীর শীলমান্দি এলাকার একটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার হিসেবে কর্মরত।

নির্যাতনের শিকার কিশোরীর পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ‘অভিযুক্ত চিকিৎসক নরসিংদীর শীলমান্দিতে ভাড়া বাসায় থাকেন। তিনি একটি সোয়েটার কারখানার মেডিক্যাল অফিসার। এর পাশাপাশি তিনি ছুটির দিনে ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের একটি চেম্বারে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করেন। এ সুবাদে লিভারের রোগী ওই কিশোরীর সঙ্গে আশরাফ উদ্দিনের পরিচয় হয়। তিনি ওই কিশোরীকে লিভারের উন্নত চিকিৎসার করানোর পাশাপাশি একটি বেসরকারি হাসপাতালে সেবিকার চাকরি দেওয়ার আশ্বাস দেন। গত ৩১ এপ্রিল কিশোরীকে চাকরির জন্য নার্সিং কোর্সে ভর্তি করানোর কথা বলে তার নরসিংদীর বাসায় নিয়ে আসেন ‘

এরপর গত ৪ মে থেকে তিনি ওই কিশোরীকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। এ ঘটনা কাউকে না জানানোর জন্য কিশোরীকে হুমকি দেন। গত শুক্রবার স্থানীয়রা ঘটনাটি টের পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ এসে কিশোরীকে উদ্ধার ও অভিযুক্ত চিকিৎসককে গ্রেফতার করে। শনিবার দুপুরে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নির্যাতনের শিকার কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।

নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সৈয়দুজ্জামান বলেন, ‘এই ঘটনায় অভিযুক্ত চিকিৎসক আশরাফ উদ্দিনকে আটকের পর আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কিশোরীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here