স্টাফ রিপোর্টার, শিকড় সন্ধানে:
রাজধানীর ডেমরায় বিলকিস আক্তার (২৭) নামে এক গৃহবধূ তার যৌতুকলোভী স্বামী,শতিন ও শাশুরির নির্যাতনের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে ডেমরা থানায় ভুক্তভোগী ওই নির্যাতনকারীদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। আসামিরা হলেন- বিলকিসের স্বামী মাদারীপুরের সদর থানার শ্রীনদি গ্রামের আব্দুল জলিল মীরের ছেলে মো. রনি মীর (৩০), তার বাবা আব্দুল জলিল মীর (৬০), মা জরিনা বেগম (৪৫) ও রনির দ্বিতীয় স্ত্রী সাথী আক্তার (২০)। বর্তমানে তারা ডেমরার বড়ভাঙ্গা এলাকার ফয়েজ ভিলায় ভাড়া থাকেন। তবে মামলার পর থেকেই আসামিরা পলাতক রয়েছেন।

ভুক্তভোগীর বরাত দিয়ে ডেমরা থানার ওসি মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, গত ৯ বছর আগে রনির সঙ্গে বিয়ে হয় শেরপুরের নালিতাবাড়ী থানার কোনানগর গ্রামের মো. ইদ্রিস আলীর মেয়ে বিলকিস আক্তারের সঙ্গে। তখন মেয়েরে সুখের কথা চিন্তা করে ইদ্রিস আলী যৌতুক হিসেবে রনিকে নগদ ১ লক্ষ টাকা, স্বর্ণালংকার ও আসবাবপত্র দেন। বর্তমানে ওই সংসারে বেলাল ও রতœা দুটি সন্তান রয়েছে। এদিকে গত বছর রনি সাথী নামে আরেকটি মেয়েকে বিয়ে করেন। ওই বিয়ের পর থেকেই বিলকিসের ওপর শুরু হয় শারিরিক ও মানসিক নির্যাতন। তাছাড়া ইতিপূর্বে বিলকিসের কাছে রনি আরও ২ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবি করে তাকে চাপ সৃষ্টি করছিলেন।

ওসি সিদ্দিকুর রহমান আরও বলেন, যৌতুকের দাবিতে বিলকিসের সংসারে প্রতিনিয়ত ঝগড়া হতো রনির। গত ৩০ সেপ্টেম্বর বিকালে দাবিকৃত যৌতুকের ২ লক্ষ দিতে অস্বীকার করলে রনি তার দি¦তীয় স্ত্রী ও বাবা মায়ের সহযোগীতায় বিলকিসকে এলাপাথারী মারধর করেন। এ ঘটনায় অসু¯’ হয়ে পড়লে বিলকিসের বাবা মেয়েটিকে গত ১ অক্টোবর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরী বিভাগে চিকিৎসা করান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here